May 23, 2019
  • বিচারাধীন মামলার সংবাদ পরিবেশনের ব্যাখ্যা দিলেন সুপ্রিম কোর্ট
  • ঋণখেলাপিদের বিশেষ সুবিধা দেয়া সার্কুলারে স্থিতাবস্থা হাইকোর্টের
  • ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকার এডিপি অনুমোদন
  • দুধ ও দুগ্ধজাত খাদ্য পণ্যের নমুনা পরীক্ষার নির্দেশ
  • ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে কাজ চলমান, ঈদে ভোগান্তির আশঙ্কা
  • সূচকের পতনে লেনদেন শেষ
  • পঞ্চম ধাপের মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন মঙ্গলবার
  • আওয়ামী নেতাদের আশ্বাসে পদবঞ্চিতদের আন্দোলন স্থগিত
  • ঢাকা ও চট্টগ্রামে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩ ছিনতাইকারী
  • যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যুদ্ধ হলে ইরান ধ্বংস হয়ে যাবে: ট্রাম্প

৫ শতাংশ নগদ সহায়তার দাবি বিজিএমইএ’র

BGMEA LOGO1
বাংলার নিউজ ডট কমঃ আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে তৈরি পোশাক রপ্তানির ক্ষেত্রে আগামী এক বছরের জন্য ৫ শতাংশ হারে নগদ সহায়তার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) বিদায়ী সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান।

বুধবার রাজধানীর উত্তরায় বিজিএমইএ কমপ্লেক্সে দেশের বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার অর্থনৈতিক রিপোর্টারদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ দাবি জানান তিনি।

সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘৫ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা দিলে সরকারের ব্যয় হবে ১৪ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু এর ফলে শ্রমিকের কর্মসংস্থান ঠিক হবে। বিপরীতে সরকার এ শিল্প থেকে চার গুণ বেশি রাজস্বও পাবে। আর মনে রাখা দরকার উদ্যোক্তা চলে গেলে ফিরিয়ে আনা কঠিন। কারণ, একদিনে উদ্যোক্তা গড়ে ওঠে না। তাই পোশাক শিল্পে আপৎকালীন সহায়তা হিসেবে নগদ সহায়তা প্রদানের জোর দাবি জানাচ্ছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘সবচেয়ে বড় কথা হলো বর্তমান প্রেক্ষাপটে এই নগদ সহায়তা পেলে অনেক কারখানা বন্ধ হওয়া থেকে রক্ষা পাবে। ভ্যাটের (মূল্য সংযোজন কর) নামে পোশাক ব্যবসায়ীদের হয়রানি করা হচ্ছে। তাই এনবিআরকে বলব ভ্যাটের নামে পোশাক ব্যবসায়ীদের হয়রারি বন্ধ করুন।’

বন্ড সুবিধার অপব্যহারকারীদের শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়ে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘কিছু ব্যাবসায়ী বন্ডের সুবিধার অপব্যবহার করছে। কিন্তু এজন্য ঢালাওভাবে পোশাক শিল্পকে দোষারোপ করা হচ্ছে; যা বিজিএমইএ সমর্থন করে না। তাই যারা বন্ডের অপব্যবহারের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।’

এখনও বিভিন্ন ব্যাংক ডাবল ডিজিটে ঋণের সুদহার আদায় করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘২০১৮ সালের ১ জুলাই থেকে আমানতের সর্বোচ্চ সুদহার ৬ শতাংশ এবং ঋণে ৯ শতাংশ করার কথা বলা হলেও এখন পর্যন্ত উদ্যোক্তারা বাস্তবে এর কোনো সুফল পাচ্ছেন না।’

বিজিএমইএ’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ফারুক হাসান, সহ-সভাপতি এস.এস. মান্নান (কচি), সহ-সভাপতি (অর্থ) মোহাম্মদ নাছির এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

বিভাগ - : অর্থ ও বাণিজ্য

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন