August 24, 2019
  • মোজাফফর আহমদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক
  • গ্রেনেড হামলার মূলহোতাদের ফিরিয়ে আনা হবে : কাদের
  • যুবলীগ নেতা খুন, ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২ রোহিঙ্গা
  • আমাজনের আগুন নেভাতে এবার সেনাবাহিনী তলব
  • গাজীপুরে ছাত্রলীগ নেতাদের ওপর হামলা, আহত ৪
  • টেবিলে পা রেখে আলোচনায় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী!
  • ‘হাইকোর্টের রুলের যথাযথ বাস্তবায়ন চাই’
  • বিমানের মাধ্যমেই পরিচিতি পাবে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী
  • বিএসইসি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপনে বিএসইসির প্রতিবাদ
  • শুভ জন্মাষ্টমী, শ্রী কৃষ্ণের জন্মদিন শুক্রবার

২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকার এডিপি অনুমোদন

eknek22
বাংলার নিউজ ডট কমঃ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সভায় আগামী অর্থবছরের (২০১৯-২০) জন্য ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে জোগান দেয়া হবে ১ লাখ ৩০ হাজার ৯২১ কোটি টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ৭১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা ব্যয়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। এরপর পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের কাছে এসব তথ্য তুলে ধরেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, অনুমোদিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকার মধ্যে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার ৯২১ কোটি টাকা এবং বৈদেশিক উৎস থেকে ৭১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা রয়েছে। আর স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান বা কর্পোরেশনের ১২ হাজার ৩৯৩ কোটি টাকার মধ্যে অভ্যন্তরীণ উৎস ৭ হাজার ৮২ কোটি টাকা এবং বৈদেশিক উৎস ৫ হাজার ৩১০ কোটি টাকা রয়েছে। সুতরাং মোট ১ হাজার ৫৬৪টি প্রকল্পের উন্নয়ন সহায়তাসহ এডিপির সর্বমোট আকার দাঁড়িয়েছে প্রায় ২ লাখ ১৫ হাজার ১১৪ কোটি টাকা।

২০১৯-২০ অর্থবছরে এডিপির আওতায় ১ হাজার ৪৭৫টি প্রকল্পের মধ্যে বিনিয়োগ প্রকল্প ১ হাজার ৩৫৮টি, কারিগরি সহায়তা প্রকল্প ১১৬টি এবং জেডিসিএফ অর্থায়িত প্রকল্প ১টি এবং স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা/কর্পোরেশনের নিজস্ব অর্থায়নে ৮৯টি প্রকল্প।

এডিপি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে এ অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১৪ হাজার ৪২৭ কোটি টাকা বা ২ দশমিক ৫২ শতাংশ বেশি ব্যয় হয়েছে বলেও জানান এম এ মান্নান।

পরিকল্পনামন্ত্রীর দেয়া তথ্য মতে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের মূল এডিপি বরাদ্দের বিপরীতে ২০১৮ সালের জুলাই থেকে ২০১৯ সালের এপ্রিল পর্যন্ত মোট ব্যয় হয়েছে ৯৭ হাজার ৩০ কোটি টাকা, যা মোট বরাদ্দের ৫৪ দশমিক ৯৪ ভাগ। একই সময়ে গত বছর হয়েছিল ৮২ হাজার ৬০৩ কোটি টাকা, যা ওই অর্থবছরের মোট বরাদ্দের ৫২ দশমিক ৪২ ভাগ।

এছাড়া এনইসি সভায় আরো বেশকিছু বিষয় অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে বরাদ্দহীন অননুমোদিত নতুন প্রকল্প ১ হাজার ৪৬টি, বৈদেশিক উৎস থেকে অর্থ প্রাপ্তির সুবিধার্থে বরাদ্দহীন অননুমোদিত প্রকল্প ২৪২টি, সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের প্রকল্পটি ৬২টি, চলতি বছরের জুনে মেয়াদোত্তীর্ণ প্রকল্প ২৭২টি। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সমাপ্তির জন্য নির্ধারিত এমন প্রকল্প ২০১৯-২০ অর্থবছরে পুনঃঅন্তর্ভুক্তির জন্য প্রকল্পটি ৫৮টি এবং ২০২০ সালের ৩০ জুনের মধ্যে সম্ভাব্য সমাপ্ত প্রকল্প ৩৫৫টি বলেও অনুমোদন দেয়া হয়েছে সভায়।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, যেসব প্রকল্প সমাপ্ত হচ্ছে না, সেগুলো কেন হচ্ছে না, প্রধানমন্ত্রী তা খতিয়ে দেখতে বলেছেন। প্রকল্পের নামে অহেতুক ও অতিরিক্ত জমি নেয়া যাবে না। ফসলি জমিতে হাত দেয়া যাবে না বলেও নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

বিভাগ - : অর্থ ও বাণিজ্য

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন