September 20, 2019
  • ডেঙ্গুর চিকিৎসায় ক্ষতি সাড়ে ৩০০ কোটি টাকা
  • ৮০ হাজার ছাড়িয়েছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা
  • আছাদুজ্জামানের বিদায়, ডিএমপির দায়িত্বে শফিকুল
  • সংশোধিত পাবলিক ইস্যু রুলসের গেজেট প্রকাশ
  • রিং সাইনের আইপিও লটারির ড্র তারিখ নির্ধারণ
  • রাজধানীতে কিশোর গ্যাংয়ের শতাধিক সদস্য আটক
  • পর্যটনবান্ধব দেশের র‌্যাংকিংয়ে বড় সাফল্য বাংলাদেশের
  • উখিয়ার পাহাড়ে মাটি খুঁড়ে অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার
  • শেষ মুহূর্তে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ভারতের চন্দ্রযান ২
  • নোয়াখালীর ঠিকানায় পাসপোর্ট, তুরস্ক যাওয়ার চেষ্টা ৩ রোহিঙ্গার

ডেঙ্গুর চিকিৎসায় ক্ষতি সাড়ে ৩০০ কোটি টাকা

300h
বাংলার নিউজ ডট কমঃ ডেঙ্গু প্রকোপে আতঙ্কে দিন করছেন দেশবাসী। ইতোমধ্যে সরকারি পর্যায় থেকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আর ভুক্তভোগীদেরও অনেক অর্থ ব্যয় হচ্ছে। সবমিলে ডেঙ্গুর চিকিৎসায় প্রায় ৩৪৬ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

হাসপাতালভেদে একেকজন রোগী খরচ করেছেন প্রায় ১১ হাজার থেকে ২ লাখ টাকা পর্যন্ত। বিভিন্ন শ্রেণির ১২টি হাসপাতালের রোগীদের তথ্য পর্যবেক্ষণ করে এ গবেষণা প্রকাশ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউট।

পরবর্তীতে হাসপাতালে ভর্তি না হয়ে চিকিৎসা নেয়া বিপুলসংখ্যক রোগী ও সরকারের অর্থনৈতিক ক্ষতির হিসাব প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছে ঢাবির স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউট।

যে কোনো রোগে স্বাস্থ্যহানির পাশাপাশি অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখোমুখিও হন আক্রান্ত ব্যক্তি। তবে এ বছর ডেঙ্গুর ব্যাপক বিস্তারে সে ক্ষতি মাত্রা ছাড়িয়েছে।

সমীক্ষা বলছে, চলতি বছরের ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ভর্তি ফি, শয্যা ভাড়া, পরীক্ষা ফি, ডাক্তার ফি, ওষুধ ও খাবার খরচ মিলে স্থানীয় সরকারি হাসপাতালেই একজন ডেঙ্গু আক্রান্তের খরচ হয়েছে ১০ হাজার ৯৫২ টাকা। রেফার হয়ে আসা রোগীর খরচ হয়েছে ২০ হাজার ৪৯৩ টাকা।

অন্যদিকে অভিজাত বেসরকারি হাসপাতালে ২ লাখ ১৭ হাজার ১৪ ও সাধারণ হাসপাতালে খরচ হয়েছে ৪১ হাজার ৩১৯ হাজার টাকা। রোগীদের সঙ্গে আসা স্বজনদের থাকা-খাওয়া, যাতায়াত, কর্মঘণ্টাসহ মোট পরোক্ষ ব্যয় হয়েছে ২২৬ কোটি টাকা।

স্বাস্থ্য অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. সৈয়দ আবদুল হামিদ বলেন, হয়তো কারো জ্বর হয়েছে। চিকিৎসক এজন্য তাকে ডেঙ্গুর টেস্ট দিয়েছেন। এ কারণে যে পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, তা আমাদের হিসাবে প্রায় সাড়ে ৩০০ কোটি টাকা। অপ্রত্যাশিত এ ক্ষতি এড়াতে এখনই যুগোপযোগী মহাপরিকল্পনা গ্রহণ জরুরি।

অধ্যাপক আবদুল হামিদ বলেন, কাউকে দায়ী না করে একটা পরিকল্পনা করে এগোলে একটা ভালো ফল পাওয়া যাবে।

সরকারি হিসাবে, গত ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা ৬০, যাদের গড় বয়স ৩০। মাথাপিছু আয়ের নিরিখে যে ৬০ জন মারা গেছেন, তাদের আর্থিক ক্ষতি ধরা হয়েছে সাড়ে ৩৯ কোটি টাকা।

এদিকে গবেষকরা বলেন, ভবিষ্যতে এ ধরনের ক্ষতি এড়াতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি।

বিভাগ - : জাতীয়

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন