May 23, 2019
  • বিচারাধীন মামলার সংবাদ পরিবেশনের ব্যাখ্যা দিলেন সুপ্রিম কোর্ট
  • ঋণখেলাপিদের বিশেষ সুবিধা দেয়া সার্কুলারে স্থিতাবস্থা হাইকোর্টের
  • ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকার এডিপি অনুমোদন
  • দুধ ও দুগ্ধজাত খাদ্য পণ্যের নমুনা পরীক্ষার নির্দেশ
  • ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে কাজ চলমান, ঈদে ভোগান্তির আশঙ্কা
  • সূচকের পতনে লেনদেন শেষ
  • পঞ্চম ধাপের মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন মঙ্গলবার
  • আওয়ামী নেতাদের আশ্বাসে পদবঞ্চিতদের আন্দোলন স্থগিত
  • ঢাকা ও চট্টগ্রামে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩ ছিনতাইকারী
  • যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যুদ্ধ হলে ইরান ধ্বংস হয়ে যাবে: ট্রাম্প

ডাকসুর তফসিল ঘোষণা, নির্বাচন ১১ মার্চ

dakso
বাংলার নিউজ ডট কমঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচন (ডাকসু) আগামী ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে। ১৯ থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মনোনয়ন পত্র কিনতে পারবেন প্রার্থীরা। হল অফিস থেকে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করতে হবে। আর জমা দেয়ার শেষ তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি।

এবার মোট ২৫টি পদের বিপরীতে লড়বেন আগ্রহী প্রার্থীরা।পদগুলো হলো- সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সহ-সাধারণ সম্পাদক, স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক, কমনরুম বিষয়ক সম্পাদক, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক, ক্রীড়া সম্পাদক, ছাত্র পরিবহন সম্পাদক, সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক এবং ১৩ জন কার্যনির্বাহী সদস্য।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ডাকসু নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। ডাকসু নির্বাচনের চিফ রিটার্নিং অফিসার অধ্যাপক ড. এস এম মাহফুজুর রহমান আনুষ্ঠানিকভাবে এই তফসিল ঘোষণা করেন। এসময় রিটার্নিং অফিসারগণ উপস্থিত রয়েছেন।

প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র ২৬ তারিখ যাচাই বাছাই করার পর ২৭ তারিখ প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে। আর মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করা যাবে ২ মার্চ পর্যন্ত। নির্বাচন কমিশন প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করবে ৩ মার্চ।

এ সময় ডাকসুর প্রধান নির্বাচন কমিশনার জানান, সম্পূরক ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে ৫ মার্চ। আর ১১ মার্চ ভোট গ্রহণ, গণনা ও ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল ছাত্র সংসদ নির্বাচনে কারা কারা ভোটার ও প্রার্থী হতে পারবেন তা ঘোষণা করা হয়েছে। যারা প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে অনার্স, মাস্টার্স, এমফিলে অধ্যয়নরত তারাই কেবল ভোটার ও প্রার্থী হতে পারবেন। এক্ষেত্রে কারও বয়স ৩০ বছরের ওপরে হলে তারা ভোটার ও প্রার্থী হতে পারবেন না।

এ ছাড়া সান্ধ্যকালীন বিভিন্ন কোর্স, প্রোগ্রাম, প্রফেশনাল এক্সিকিউটিভ, স্পেশাল মাস্টার্স, ডিপ্লোমা, এমএড, পিএইচডি, ডিবিএ, ল্যাঙ্গুয়েজ কোর্স, সার্টিফিকেট কোর্স অথবা এ ধরনের কোর্সে অধ্যয়নরতরা ডাকসু নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না।

বিভাগ - : রাজনীতি, শিক্ষাঙ্গন

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য দিন